ইলন মাস্ক: সত্যিকারের আয়রন ম্যান

March 16, 2019 ...
UF KD2SerJVMKXn1lLsfIfF2CcmUb44fEJKRPvytyCdBwZJQ

(source: Dan Silvestre)

মার্ভেল কমিক্সের রঙিন পাতার টনি স্টার্ককে কে না চেনে? একদিকে তার পরিচয় যেমন বিখ্যাত বিজ্ঞানী-বিলিয়নিয়ার, অন্যদিকে লালরঙা লৌহ বর্মে আবৃত হওয়ামাত্র পৃথিবীবাসীর জন্য সে আয়রনম্যান। ফিকশন কমিক্সের পাতায় আয়রনম্যান যেমন বিজ্ঞানের সকল অসম্ভবকে তার জেটপ্যাকে ভর করে সম্ভবপর করতো, ঠিক তেমনি বাস্তবের পৃথিবীতেও কিন্তু এমন একজনের দেখা মেলে যিনি তাঁর অসাধারণ উদ্ভাবনী বৈজ্ঞানিক চিন্তাধারা দিয়ে নতুনভাবে রূপ দিচ্ছেন আমাদের চারপাশকে। নাম তাঁর- ইলন মাস্ক।

প্রায় ২১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সম্পত্তির মালিক ইলন মাস্ককে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে সফল উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচয় দেয়া হয়। বিচিত্র চিন্তাধারার এই মানুষটির আপাদমস্তক জীবনধারা আমাদের অনেক বেশি অনুপ্রেরণার জোগান দেয়। অনেকের মতে হালের ইলন মাস্ক অনেকটাই সেই কেএফসির কর্নেল স্যান্ডারস কিংবা আলিবাবার জ্যাক মা এর প্রতিচ্ছবি, যারা শত ব্যর্থতা পেছনে ফেলে সাফল্যের চূড়ায় আহরণে সক্ষম হয়েছিলেন। ক্ষুদ্র কম্পিউটার প্রোগ্রামিং থেকে শুরু করে মঙ্গলের লাল মাটিতে প্রাণের বিকাশে পদচারণ- এত লম্বা যাত্রাপথটা কিন্তু মোটেও সুগম ছিলো না। দেখে আসা যাক প্রিটোরিয়ার ছোট্ট এক বালকের বিলিয়নিয়ার উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প-

ছোটবেলার গল্প:

s8Ze0U0LytPEEk2z0Mufc39MMO6SGYVDyORN 6s1m8UsLtr9tWSF5F eEufbccBMei1hHOnVFsmI6aMt5XkGi1ZSVjBIa oeXUdMT2viz0bIuc1SlTX3l6h55brC1tkq4 O6mowd

(source: Astrum People)

দক্ষিন আফ্রিকান বাবা ও কানাডিয়ান মা এর সন্তান ইলনের পুরো নাম “ইলন রিভ মাস্ক,” জন্ম ১৯৭১ সালে, দক্ষিন আফ্রিকার প্রিটোরিয়ায়। ছোটবেলা থেকেই বইয়ের প্রতি খুব ঝোঁক ছিল ইলনের। মাত্র নয় বছর বয়সে ঘরে বইয়ের অভাবে তিনি শেষমেষ পড়া শুরু করেন বিখ্যাত এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা, যা তিনি একসময় পড়া শেষও করে ফেলেন! স্কুল জীবনে অনেকটাই চুপচাপ ছিলেন তিনি, যাকে আমরা বলি ইন্ট্রোভার্ট। একারণে স্কুল পড়ুয়াবস্থায় প্রচন্ড বুলির শিকার হতেন এবং তাকে একবার হসপিটালেও নেয়া হয়। জীবনের শুরুতেই এত এত মানসিক চাপ কিন্তু কোনোভাবেই তাঁর সাফল্যের অগ্রযাত্রাকে শিকল পড়িয়ে রাখতে পারেনি। মাত্র ১০ বছর বয়সেই সে নিজ থেকেই কম্পিউটার প্রোগ্রামিং এ পারদর্শিতা লাভ করেন। ১২ বছর বয়সেই তিনি ব্লাস্টার নামক একটি মজাদার ভিডিও গেম তৈরি করে ফেলেন। মজার ব্যাপার হলো, সেই ভিডিও গেমটি তিনি একটি ম্যাগাজিনের কাছে বিক্রি করে নগদ ৫০০ মার্কিন ডলার আয় করেন!

শিক্ষাজীবন:

দক্ষিন আফ্রিকার আবশ্যিক সামরিক জীবনকে “না” বলে মাস্ক কানাডা পাড়ি দেন উচ্চশিক্ষার উদ্দেশ্যে। যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অফ পেনিসিলভেনিয়া থেকে তিনি অর্থনীতিতে স্নাতক সম্পন্ন করেন। পরবর্তীতে তিনি পদার্থবিজ্ঞানের উপর দ্বিতীয় স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

বলে রাখা ভালো, স্কুল-কলেজে বিজ্ঞানের শিক্ষার্থী হওয়া সত্ত্বেও বিশ্ববিদ্যালয়ে কমার্স কিংবা আর্টসে পড়াশুনা করতে গেলেও অনেকের মধ্যেই সাইন্স ব্যাকগ্রাউন্ডে ক্যারিয়ার গড়ার সুপ্ত একটা ইচ্ছা থাকে। তাদের জন্য অনুপ্রেরণা হতে পারেন ইলন মাস্ক। কেননা তিনি একসময় অর্থনীতির শিক্ষার্থী হওয়ার পরও পরবর্তীতে তিনি কিন্তু বৈজ্ঞানিক কর্মক্ষেত্রেই সফল হতে পেরেছেন।

এনার্জি ফিজিক্সের উপর পিএইচডি করার উদ্দ্যেশে মাস্ক স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পরপরই তিনি ঠিক করেন যে, পিএইচডি বাদ দিয়ে তিনি ব্যবসায়িক উদ্যোক্তা হওয়ার দিকে মনোনিবেশ করবেন এবং ঠিক ২দিন পর তিনি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ড্রপ আউট হন।

সফলতার শুরু:

সময়টা ছিল ইন্টারনেটের শুরুর দিকে, বিল গেটসের মতে যা,

“Internet is the new big thing”

ইন্টারনেটের অপার সম্ভাবনাই মূলত ইলন মাস্ককে জিপ টু তৈরিতে অনুপ্রেরণা দেয়, এমন একটি সফটওয়্যার যা শহরের খবরের কাগজের জন্য ইন্টারনেট গাইড হিসেবে ব্যবহার করা হতো। জিপ টু এর সিইও পদের জন্য মাস্ক আগ্রহী হলে তাঁর নিজের কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদই তাঁকে বাঁধা দেয়। ইতিমধ্যে বিখ্যাত টেক কোম্পানি কমপ্যাক জিপ টু কে অধিগ্রহণ করলে মাস্ক পকেটে পুরে নেন ২২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

জিপ টু এর পাট চুকিয়ে মাস্ক নিয়ে আসলেন এক্স ডট কম নিয়ে। এক্স ডট কম কী জানো? আমাদের দেশে বিকাশ-ইউক্যাশের মাধ্যমে টাকা আদান-প্রদানের ধারণাটাই মাস্ক এক্স ডট কমের মাধ্যমে দিয়েছিলেন, যা পরবর্তীতে রূপ নেয় বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় অনলাইন মানি ট্রান্সেকশনের মাধ্যম পেপ্যাল এ। ২০০২ সালে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইবে পেপ্যালকে ১.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে কিনে নেয় যা তখনকার সময়ে সবচেয়ে বড় ব্যবসায়িক অধিগ্রহণ ছিল। পেপ্যালের ১১.৭ শতাংশ শেয়ার ইলন মাস্কের ব্যাংক একাউন্টে জমা করে প্রায় ১৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

8d1C0sEryG6rwZLF1EjFm3Gm0x0kOVBjnmWiulzvtOvt8oaTzuKoaPurzS1O1n3D5BwElqp2juskYaiLSqLYEcxxlKINDDCLoSP2RL z0EZDllp0R2i6D0444hcIyFokLNqQNuXe

 (source: New York Post)

জিপ টু ও এক্সডটকম-পেপ্যাল এর পর মাস্ক কিন্তু চাইলেই মিলিয়নিয়ারের তকমা দিয়ে অনায়েসেই বিলাসী এক জীবন কাটাতে পারতেন। কিন্তু মাস্কের স্বপ্নটা ছিল আরও অনেক বড়, আরও অনেক সুদূরপ্রসারী।

 

স্পেসএক্স দিয়ে মহাকাশজয় :

ইলন মাস্কের ইচ্ছা ছিল, আন্তঃমহাদেশীয় রকেট দিয়ে তিনি ব্যাক্তিগত উদ্দ্যোগে পৃথিবী থেকে মহাকাশে পন্য সরবরাহ করবেন। যেই ভাবা সেই কাজ, রকেট কেনার উদ্দ্যেশে মাস্ক উড়াল দিলেন রাশিয়ায়। কিন্তু রাশিয়ায় গিয়ে দেখেন যে এক একটি আইসিবিএম (আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র) এর দাম প্রায় ৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং যা একবারই ব্যবহারযোগ্য। এরকম অবিশ্বাস্য দাম শুনে ইলন মাস্ক হতাশ হয়ে পড়েন। এমনকি ক্ষেপণাস্ত্র তৈরিকারকেরাও মাস্কের সাথে ঠাট্টা মশকরা শুরু করে। দেশের পথে ফিরে আসার পথিমধ্যেই মাস্ক ঠিক করেন যে তিনি নিজেই স্বল্পমূল্যে এমন সব রকেট বানাবেন যা পৃথিবীর অরবিটের ছাড়িয়ে পাড়ি দিতে সক্ষম এবং একইসাথে যা পুনর্ব্যবহারযোগ্য। রকেট পুনর্ব্যবহারযোগ্য করে তোলার স্লোগানে মাস্ক যুক্ত করেন,

“এটা পাগলাটে যে, আমরা এসব অত্যাধুনিক রকেট বানাই এবং প্রতি অভিযানের শেষে এগুলো ধ্বংস করে দেই। এটা সত্যিই হাস্যকর।”

২০০২ সালের ৬ই মে ইলন মাস্ক প্রতিষ্ঠা করেন বর্তমান বিশ্বের সর্ববৃহৎ ব্যক্তিমালিকানাধীন মহাকাশ সংস্থা স্পেসএক্স (স্পেস এক্সপ্লোরেশন টেকনোলোজিস কর্পোরেশন)।

YlcIkwMC5JupuIKbUgQ

(source: Nasa Space Flight)

স্পেসএক্স দিয়ে শুরুতেও ইলন মাস্ক বাজিমাত করে দিয়েছিলেন, তা ভাবা ভুল। বরং পরপর তিনটি ব্যর্থ রকেট উৎক্ষেপণের পর অনেকে স্পেসএক্স এর অন্তিম সময় দেখে ফেলেছিলেন । তবুও ইলন মাস্ক হাল ছাড়েননি। তিনি নিজের টেকনোলজির উপর শতভাগ আস্থা রেখেছিলেন কেননা তিনি বিশ্বাস করতেন তাঁর এই প্রযুক্তির উপর ভর করেই তাঁর স্বপ্ন পারি দিবে মহাকাশে। শত বাঁধা ও ঝুঁকিকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে স্পেসএক্স এর ফ্যালকন-১ এর সফল উৎক্ষেপণ হলো। চাইলেই কিন্তু রবার্ট ব্রুস আর মাকড়শার সেই গল্পটার সাথে আমরা ইলন মাস্ক-স্পেসএক্স এর যোগসূত্র খুঁজে বের করতেই পারি, তাই না?

স্বপ্ন যখন মঙ্গলে:

XTaD 6p6ZXHji5Z80AsOJt8aVsIdXpr6pB0IPA1Bvr9HaJwvJr8XQCMHyV30aowT9Xrs43j64ePnHhuJY8RsgbjMvQl90O994fDOZH Eehw8qAXJBS90Wf1Xh6e0HJ3hyJJRClDG

Elon Musk in 67th International Astronautical Congress

ইলন মাস্ক ছিলেন এমন একজন মানুষ, যার মস্তিষ্ক সবসময়ই ব্যস্ত থাকতো সুদূরপ্রসারী কোনো চিন্তাভাবনায়। ইলন মাস্ক মনে করতেন, মানবজাতির পদচারনা শুধুমাত্র পৃথিবী থাকাটা হাস্যকর, কেননা পৃথিবীর বুকে যেকোনো মহাবিপর্যয়ে নিমিষেই মানবজাতির বিলুপ্তি ঘটতে পারে। তাই ইলন মাস্ক নিকট ভবিষ্যতেই মঙ্গল গ্রহে মানব বসতি স্থাপনের উদ্যোগ নিলেন। মাস্ক মনে করতেন, পৃথিবী থেকে ৫৪.৬ মিলিয়ন কিলোমিটার পথ পারি দেয়ার খরচ যোগানের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হলো রকেট পুনর্ব্যবহারযোগ্য করে তোলা। স্পেসএক্স তৈরি করলো ফ্যালকন-৯, ফ্যালকন হেভি, প্রস্তাব দিলো বিএফআর এর মত অত্যাধুনিক স্পেসক্রাফটের। মাস্ক ২০২০-২০২৪ সালের মধ্যে মঙ্গল অভিযানকে বাস্তবে রূপ দিতে চান। আর ফ্যালকন-৯ থেকে শুরু করে আজকের ফ্যালকন হেভি একটা জিনিসই প্রমাণ করে, আর তা হলো ইলন মাস্কের সেই মিশন টু মার্স এখন অনেকটাই বাস্তব। মাস্ক মঙ্গল নিয়ে এতটাই আশাবাদী যে তিনি পৃথিবীতে নয়, বরং মঙ্গল গ্রহে মৃত্যুবরণ করারও ইচ্ছা ব্যাক্ত করেন!

টেসলা, হাইপারলুপ এবং অন্যান্য:

স্পেসএক্স প্রতিষ্ঠার ২ বছর পর ইলন মাস্ক ঠিক করলেন, পৃথিবীর জ্বালানির ঘাটতি কমানোর জন্য বৈদ্যুতিক শক্তিচালিত গাড়ির কোনো বিকল্প নেই। তাই তিনি প্রতিষ্ঠা করলেন টেসলা ইনকর্পোরেটেড, সৌর ও বৈদ্যুতিক জ্বালানি শক্তিচালিত মোটরগাড়ির অনন্য এক প্রতিষ্ঠান। ইলন মাস্ক নিশ্চিত করেন যে, ক্যালিফোর্নিয়ার টেসলার ফ্যাক্টরি থেকে বের হওয়া প্রতিটি গাড়ি যেন ১০০% পরিবেশবান্ধব ও জ্বালানি সাশ্রয়ী হয়।

যদি তোমাকে বলা হয়, ঢাকা থেকে দেশের যেকোনো প্রান্তে তুমি যাতায়াত করতে পারবা মাত্র কয়েক মিনিটে, অবাক হবা নিশ্চয়ই। ইলন মাস্ক এমন একটি যোগাযোগ ব্যবস্থার কথা বলেছেন, যেখানে এসব কিছু সম্ভব। তিনি এর নাম দিয়েছেন হাইপারলুপ। মাটির নিচ দিয়ে লুপের মধ্য দিয়ে চলে হাইপারস্পিডের এক ক্যাপস্যুলের সাহায্যে পৃথিবীর যেকোনো প্রান্তের দূরত্ব চলে আসবে মাত্র কয়েক ঘণ্টার।

ইলন মাস্কের নানান উদ্যোগের মধ্যে আরো রয়েছে সোলার সিটি যেখানে মাস্ক পুরো পৃথিবীকে সৌর শক্তির নিচে আনতে চান, ওপেন এআই যেখানে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিত করার কাজ করা হয়, নিউরালিংক, গিগাফ্যাক্টরির মত আরো অনেক উদ্ভাবনী ধারনা। কয়েকদিন আগে থাইল্যান্ডের এক গুহায় শিশুদের আটকে পড়ার সময়ে ইলন মাস্ক ফ্যালকন ৯ রকেটের তরল অক্সিজেন সরবরাহ করার টিউব দিয়ে তৈরিকৃত একটি মিনি সাবমেরিন দান করে উদ্ধারকর্মীদের সাহায্য করেন।

কিছু অনুপ্রেরণামূলক উক্তি:

“যে কাজটা করা তোমার জন্য অতি জরুরী, সেটির জন্য অবশ্যই চেষ্টা করা উচিত। এমনকি কাজটির সফলতার সম্ভাবনা শূন্য হওয়া সত্ত্বেও।”

“একজন সফল উদ্যোক্তা হওয়া অনেকটা ওভেনে কেক বেক করার মতো। তোমার নিজের মধ্যে প্রতিটি উপাদান সঠিক মাত্রায় থাকা বাঞ্ছনীয়।”

“জীবনে ব্যর্থতা না আসলে তুমি সত্যিকার অর্থে নতুন কিছু উদ্ভাবন করতে পারবে না।”

সমালোচনা:

জীবনে কোনো ব্যক্তি সফল হয়েছেন এবং তিনি সমালোচনার শিকার হননি, এরকম উদাহরন খুঁজে বের করা আসলেই দুষ্কর। যেমনটি ঘটেছে ইলন মাস্কের ক্ষেত্রেও। স্কুল জীবনের শুরু থেকেই তিনি অন্যান্য শিক্ষার্থীদের চোখে যেমন তুচ্ছ ছিলেন, তেমনি সমালোচিত হয়েছেন নিজের বিভিন্ন চিন্তাধারার জন্যও। এমনকি মাস্কের মঙ্গল গ্রহকে নিয়ে এত সুদূরপ্রসারী চিন্তাভাবনাকেও অনেকে অহেতুক বলে চলেছেন। কিন্তু খোদ ইলন মাস্ক নিজে এসব বিষয় নিয়ে বিন্দুমাত্র চিন্তিত নন, বরং তিনি বলেন,

“আমি সর্বদা সমালোচনা খুঁজে বেরাই। তোমার কাজের প্রতি একজন যুক্তিসম্পন্ন সমালোচক স্বর্ণালংকারের মত মূল্যবান।”


(source: Quotefancy)

পরিশেষে বলা যায়, এত দ্রুতই ইলন মাস্ক পৃথিবীতে যে আমূল পরিবর্তনের ছাপ রেখে যাচ্ছেন, তা সত্যিই সাধারণ সাফল্যের পাল্লায় পরিমাপ করা সম্ভব নয়। বলাই বাহুল্য, “ভবিষ্যতের পৃথিবীর একজন রূপকার কে”- এমন প্রশ্নের উত্তরে প্রথমেই যে নামটি এই মুহূর্তে সবার মাথায় আসবে, তিনিই হলেন ইলন মাস্ক। ঠিক যেমন লেখক অ্যাশলি ভ্যান্স রচিত বিখ্যাত “ইলন মাস্ক” বইটির মোড়কেই রয়েছে,

“How the billionaire CEO of SpaceX and Tesla is shaping our future”

তথ্যসূত্র:

https://www.biography.com/people/elon-musk-20837159

https://www.bbc.com/news/av/business-45645422/who-is-elon-musk


 

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: write@10minuteschool.com

আপনার কমেন্ট লিখুন