পাওয়ারপয়েন্ট -এ 3D Model এবং এনিমেশন কীভাবে ব্যবহার করবে?

May 25, 2022 ...

শুধু ছবি আর ডাটা অ্যাড করলেই কি নিখুঁত প্রেজেন্টেশন তৈরি হয়ে যায়? তরকারিতে শুধু লবণের সাথে একটু মশলা না দিলে যেমন খেতে ভালো লাগে না, তেমনি মাইক্রোসফট পাওয়ারপয়েন্ট -এ স্লাইড বানানোর সময়, ছবির পাশাপাশি থ্রিডি মডেল বা অ্যানিমেটেড ছবি না দিলেও প্রেজেন্টেশনটা ঠিক জমে না। 

Microsoft PowerPoint আমরা প্রায় সবাই কোনো না কোনো সময় ব্যবহার করেছি। সেটা জেনে হোক বা না জেনেই হোক না কেন, এর ব্যবহার সম্পর্কে টুকটাক ধারণা আমাদের সবারই আছে৷ এটা মাইক্রোসফট কর্পোরেশনের তৈরি এমন এক সফটওয়্যার যার মাধ্যমে যেকোনো প্রেজেন্টেশনের কাজ খুব সহজেই করা যায়। শুধু প্রেজেন্টেশনই না, সিভি, রিপোর্ট তৈরি করার মতো কাজগুলোও চটজলদি করে ফেলা যায়। 

আপনি একজন বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া শিক্ষার্থী, অথবা কোনো প্রতিষ্ঠানের ইন্টার্ন, কর্মী, বস বা কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকই হন না কেন, পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশন স্কিল থাকাটা আপনার জন্য অত্যন্ত জরুরি। এমনকি কর্পোরেট জগতেও আপনি অনেক পিছিয়ে পড়বেন যদি এই গুরুত্বপূর্ণ স্কিলটি আপনার না থাকে।

পাওয়ারপয়েন্টে

তবে ভালো প্রেজেন্টেশনের ক্ষেত্রে কেবল একের পর এক স্লাইড যুক্ত করে গেলেই হবে না, এটা ঠিকমতো গোছাতেও হবে। সঠিক নিয়ম না মেনে স্লাইড তৈরি করার ফলে অনেক পরিশ্রম আর সময় নিয়ে পাওয়ারপয়েন্ট স্লাইড বানানোর পরও অনেক শিক্ষার্থীর প্রেজেন্টেশন ঠিক আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে না। তাহলে উপায়?

স্লাইড বানানোর আগে প্রথমেই ‘কন্টেন্ট প্ল্যানিং’ করে নিন। পাওয়ারপয়েন্ট স্লাইডের মাধ্যমে কোনো প্রজেন্টেশন তৈরির আগে একটা কাগজে কোন স্লাইডে কী কী দেখাবেন, কী কী তথ্য যুক্ত করবেন তার একটি তালিকা করে ফেলুন। এতে করে ধাপে ধাপে আপনার প্রেজেন্টেশন তৈরির সময় স্লাইডের ওপর নিয়ন্ত্রণ থাকবে। প্রস্তুতি নিয়ে প্রেজেন্টেশন শুরু করলে দর্শক আপনার কথা শুনতে আগ্রহী হবেন।

Microsoft PowerPoint এর কিছু বহুল ব্যবহৃত ফিচার হলো:

  • স্লাইড ডিজাইন
  • অ্যানিমেশন
  • ইনসার্ট আইকন
  • থ্রিডি মডেল
  • ভিডিও রেকর্ডিং
  • স্লাইড লে-আউট
  • স্লাইড ট্রানজিশন
  • ভিজ্যুয়াল ইফেক্ট ইত্যাদি।

পাওয়ারপয়েন্টে প্রেজেন্টেশন সাজানোর জন্য এরকম অসংখ্য টুল রয়েছে৷ তবে আজকে আমরা শুধু থ্রিডি মডেল ও অ্যানিমেশন নিয়েই জানবো। 

মাইক্রোসফট পাওয়ারপয়েন্ট -এ থ্রিডি মডেল ও অ্যানিমেশন 

থ্রিডি মডেলগুলো তৈরি হয় ভার্টিক্স (Vertex), এজ (Edge) ও ফেস (Face) দিয়ে। আর কম্পিউটারের মাধ্যমে কোনাে লেখা, টেক্সট, ড্রয়িং, ইমেজ, পেইন্টিং ইত্যাদি স্থির বস্তুকে বিভিন্ন ডাইমেনশনে, বিভিন্ন স্টাইলে চলমান বা গতিশীল করার কৌশলকে অ্যানিমেশন বলা হয়। এই দুই টুলের মাধ্যমে স্লাইড সাজানো হলে তা আপনার প্রেজেন্টেশনকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে যাবে।

3D ফিচারের মাধ্যমে আপনি মডেলগুলোকে ৩৬০ ডিগ্রি কোণে ঘোরাতে পারবেন বা একটি বস্তুর একটি নির্দিষ্ট সাইড দেখাতে উপরে ও নীচে কাত করতে পারেন। 3D মডেল আমাদের মনে একটি বাস্তব-জগত ও ধারণাগত ভিজ্যুয়াল তৈরি করতে সাহায্য করে।

পাওয়ারপয়েন্টে 3D মডেলগুলো আপনাকে সৃজনশীল এবং প্রোডাক্টিভ হতে সাহায্য করে। তাছাড়া বিনোদন, গেমিং, স্থাপত্য, প্রকাশনা, বিজ্ঞাপন এবং বিপণন ও ভূতত্ত্ব জগতে 3D মডেলিংয়ের কাজ জানা এক অর্থে আপনার জন্য বোনাস।

পাওয়ারপয়েন্টে 3D Model ব্যবহারের কৌশল:

পাওয়ারপয়েন্টে 3D মডেল যুক্ত করা অনেকটা ছবি বা ভিডিও যুক্ত করার মতোই। পাওয়ারপয়েন্টে 3D মডেল যুক্ত করতে নিম্নে আলোচিত

  •  প্রথমেই Microsoft PowerPoint সফটওয়্যারটি ওপেন করুন। এরপর রিবনের “Insert” মেনু থেকে “3D Models” আইকনের ওপর ক্লিক করলে “3D Files” ডায়ালগ বক্সটি আসবে।
    পাওয়ারপয়েন্টে
  • ইলাস্ট্রেশন সেকশনের নিচে থাকা ড্রপ-ডাউন মেন্যু থেকে আপনি কোন ধরনের 3D ফাইল যুক্ত করতে চান তা সিলেক্ট করতে পারবেন। 
  • ডায়ালগ বক্স থেকে “Insert 3D Model” অপশনটি ওপেন হবে।
  • “This Device” অপশনে ক্লিক করুন। আপনার যদি আগে থেকেই থ্রিডি মডেল তৈরি করা থাকে তাহলে সেটিই ব্যবহার করুন। 
  • পাওয়ারপয়েন্ট স্লাইডে ব্যবহার করা যেতে পারে এমন নির্দিষ্ট কিছু 3D ফাইল ফরম্যাট রয়েছে। আপনার ফাইলটি যে ফরম্যাটে সেভ করা হয়েছে সেটি সিলেক্ট করুন।
    powerpoint
  • আর আপনার কাছে যদি আগে থেকে তৈরি করা কোনো 3D মডেল না থাকে তাহলে “Online Source” অপশনে যেয়ে পছন্দমতো মডেল ডাউনলোড করে নিন।
    পাওয়ারপয়েন্টে
  • 3D মডেল insert করা হয়ে গেলে আপনি rotate করে বিভিন্ন কোণে মডেলটি ঘুরাতে পারবেন। মডেলটি রোটেট করার জন্য প্রথমে 3D মডেলে ক্লিক করুন। এরপর স্ক্রিনের দিকে তাকালে সেখানে রোটেশন টুলটা দেখতে পারবেন। রোটেশন টুলের ভিতরে মাউস পয়েন্টারটি ধরে রাখুন, তারপর মডেলটিকে যেকোনো দিকে অবাধে সরাতে পারবেন।
    3D model
  • 3D মডেলটিতে ক্লিক করে নেভিগেশন মেন্যু থেকে “Format” অপশনটি সিলেক্ট করুন। 
  • 3D মডেল ভিউ এর ড্রপ-ডাউন অপশনে ক্লিক করুন।
  • এভাবে আপনি 3D মডেলটি যুক্ত করে তার বিভিন্ন সাইড দেখতে পারবেন।

পাওয়ারপয়েন্টে অ্যানিমেশন ব্যবহারের কৌশল:

আপনি যদি আপনার থ্রিডি মডেলে অ্যানিমেশন যুক্ত করতে চান, তাহলে:

  • নেভিগেশন মেন্যুবার থেকে Animations অপশনটি সিলেক্ট করুন। 
  • এরপর 3D মডেলটির উপর পছন্দমতো অ্যানিমেশন ইফেক্ট যুক্ত করুন।
    Animation
  • স্লাইডে অ্যানিমেশন দেওয়ার পর কাজ হলো সাউন্ড দেওয়া। সাউন্ড দেওয়ার জন্য “Slide Show” মেনুতে ক্লিক করে “Slide Transition” এ গিয়ে “Modify Transition” থেকে Sound Speed> Slow/Fast/ Medium সিলেক্ট করুন। তারপর Sound বক্স থেকে কী ধরনের সাউন্ড লেখা/ছবি মধ্যে দিবেন তা নির্বাচন করুন। এখান থেকে এক এক স্লাইডে এক এক রকম সাউন্ড দেওয়া যাবে।

তবে, পাওয়ারপয়েন্টে 3D মডেল ব্যবহার করার সময় আপনি বেশ কয়েকটি সীমাবদ্ধতার সম্মুখীন হবেন। আপনি পাওয়ারপয়েন্টের মধ্যে 3D মডেল এডিট করতে পারবেন না। তবে Paint 3D-তে কাস্টমাইজেশন করতে পারবেন।

অ্যানিমেশনের ক্ষেত্রেও সীমাবদ্ধতা রয়েছে। এটি মর্ফ ট্রানজিশন এবং 3D মডেলের প্যান ও জুম বৈশিষ্ট্যের সাথে ভাল কাজ করে।

মর্ফ (Morph) পদ্ধতি:

পাওয়ারপয়েন্টে আপনার 3D মডেলকে অ্যানিমেট করার দ্রুততম এবং সহজতম উপায় হলো Morph পদ্ধতি। এরজন্য প্রথমে:

  • আপনার স্লাইডের ডুপ্লিকেট তৈরি করুন। একবার অবজেক্টগুলোর পজিশন ঠিক করা হয়ে গেলে স্লাইডটি ডুপ্লিকেট করে ফেলুন।
    Morph
  • “Transition” এ ক্লিক করে “Morph” সিলেক্ট করুন।
  • ডুপ্লিকেট স্লাইডে, আপনি স্লাইডটি কীভাবে সাজাতে চান সে অনুযায়ী অবজেক্টগুলো পুনঃস্থাপন করুন। Morph পদ্ধতিতে আপনি 3D মডেলের আকার পরিবর্তন করতে এবং পুনঃস্থাপন করতে পারবেন। 
  • প্রথমেই আগের নিয়মে একটি মডেল নির্বাচন করুন। মডেলের আকার পরিবর্তন করতে “Menu” সেকশনে যান। সেখান থেকে “Format” এ যেয়ে “Pan & Zoom” ফিচারটি সিলেক্ট করুন।
  • আপনি আপনার নির্বাচিত মডেলের ডানদিকে একটি আইকন দেখতে পাবেন। “+” আইকনে ক্লিক করুন এবং আপনি আপনার মাউসের কার্সরটি একটি দ্বি-দিক তীরে পরিবর্তন লক্ষ করবেন।
  • জুম ইন ও আউট করতে এবং বস্তুর ফোকাসের আকার পরিবর্তন করতে আপনার মাউস ব্যবহার করুন। বস্তুর আকার পরিবর্তন করতে চাইলে মডেলের চারটি কোণ ব্যবহার করতে পারবেন।
  • এখন স্লাইডে “Morph Transition” যোগ করার পালা। এটি করতে “Transition” এ যেয়ে “Morph” সিলেক্ট করুন। 

ব্যস, খুব সহজেই শিখে ফেললেন কীভাবে পাওয়ারপয়েন্টে থ্রিডি মডেল ও অ্যানিমেশন যুক্ত করতে হয়! 

আপনার কমেন্ট লিখুন