প্রেরণামূলক গল্পের ঝুলি

সমালোচনা জয় করার ৫টি উপায়

পুরোটা পড়ার সময় নেই ? ব্লগটি একবার শুনে নাও !

নিজের সিদ্ধান্ত নিয়ে কটূক্তি শুনতে হয়নি এমন মানুষ খুব কমই আছে। কটূক্তি, সমালোচনা শুনে নিজের মনে সন্দেহের বীজ বপন না করার উপায় তাহলে কী? “মানুষের কথা কানে দিবে না”- এমন উপদেশ আমরা প্রায়ই শুনে থাকি। কিন্তু কথাটা কথাই থেকে যায়। কেউ সমালোচনা করলে যতই নিজেকে বলি না কেন- “কানে নেব না”, দিনশেষে কথাগুলো ঠিকই কানে বাজে।

তবে হ্যাঁ, সবার সব কথা কানে দিয়ে জীবন সংগ্রামে এগিয়ে যাওয়াটা দুঃসহ একটা ব্যাপার। ভেঙ্গে না পড়ে কিভাবে তা তোমার শক্তিতে পরিণত করবে তা সম্পর্কে কিছু ধারণা দেয়া যাক।

১। নিজের বুদ্ধিমত্তা দিয়ে নিজেই নিজের সমালোচনা কর

মানুষের মন্তব্য থাকবেই, তা ভাল কাজের ক্ষেত্রেই হোক কিংবা খারাপ কাজের ক্ষেত্রে। তবে এক্ষেত্রে নিজের উপর বিশ্বাসটা হারালে চলবে না। ধরো তুমি আঁকতে ভালোবাসো। কেউ যদি তোমাকে বলে, “আঁকাআঁকি করে কী হবে?” তাই বলেই কি তুমি নিজের শখটা ছেড়ে দেবে? আঁকাআঁকি করলেই যে তোমাকে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে প্রথম স্থান অর্জন করতে হবে এমনটা কিন্তু না। এটা তোমার সৃজনশীলতাকে ফুটিয়ে তুলুক, তাই যথেষ্ট নয় কি?

দারুণ সব লেখা পড়তে ও নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে ঘুরে এসো আমাদের ব্লগ সেকশন থেকে!

২। নিজের দৃষ্টিভঙ্গিকে উন্মোচিত কর

ধরো তুমি মেডিকেলে পড়তে চাও, এ সিদ্ধান্তের উপর অনেকের অনেক কথাই তোমাকে শুনতে হবে; যার মধ্যে দু’টি উদাহরণ দেয়া যেতে পারে। প্রথমজন তোমাকে বললো- “মেডিকেলে পড়লে সারাজীবন শুধু পড়াশুনাই করতে হবে, তুমি কি তাই চাও?”

দ্বিতীয় জন বলল- “বাহ! ভাল করে পড়াশুনা কর, তোমার কাছেই চেক-আপ করাতে আসব।”

তুমি এখন কোনটা নিজের মনে গেঁথে নেবে সেই সিদ্ধান্তটা কিন্তু তোমার! যদি মনে করে নাও, প্রথম জন ঠিক বলছে তবে তুমি হেরে যাচ্ছো। হেরে গেলে চলবে না, শুধু নিজের দৃষ্টিভঙ্গিটা শুধরে নিতে হবে।

৩। অনুপ্রাণিত হও সমালোচনা থেকে 

নিজের ইচ্ছাশক্তিকে জাগিয়ে তুলবার জন্য অনুপ্রেরণার চেয়ে বড় কিছু নেই। যখন মনে হবে তুমি পারবে না, নিজের ইচ্ছাশক্তি নেই, নিজের কাছে নিজে হার মেনে যাবে, তখন অনুপ্রেরণা খুঁজে বের কর। সেটা যে কোন কিছু হতে পারে। হয় গান, কিংবা কোন মহৎ মনীষীর জীবনী, কিংবা কোন অনুপ্রাণিত ভিডিও।

অনুপ্রেরণা তোমাকে নিয়ে যেতে পারে বহুদূর।

জীবনে সুখে থাকার ফর্মুলা!

আমরা সুখের সন্ধানে এই জীবনে কত কিছুই না করি! কিন্তু আমরা কয়জন ’90-10 rule’-এর সাথে পরিচিত?

’90-10 rule’- সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এবং সুখে থাকার ফর্মুলা শিখতে ঘুরে এস এই ভিডিওটি থেকে। ?

৪। সংকল্পবদ্ধ এবং দৃঢ়চিত্ত হও

সমালোচনার ভিড়ে নিজেকে আবার হারিয়ে ফেলো না! নিজের সংকল্প যেন দৃঢ় থাকে। মনস্থির রেখে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে থাকবে, কারো মন্তব্য যেন তোমার পথের বাঁধা না হয়ে দাঁড়ায় এটা মনে রাখবে।

গ্রাফিক্স ডিজাইনিং, পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশান ইত্যাদি স্কিল ডেভেলপমেন্টের জন্য 10 Minute School Skill Development Lab নামে ১০ মিনিট স্কুলের রয়েছে একটি ফেইসবুক গ্রুপ।

৫। ভুল প্রমাণ কর সকল সমালোচনা

কেউ যদি তোমাকে কথা শোনায় যে তুমি পারবে না, তোমার সিদ্ধান্ত ভুল, তোমাকে দিয়ে হবে না- এসব কথা তোমাকে ভেঙে দেয়ার কারণ যেন না হয়ে দাঁড়ায়। এগুলো দিয়েই নিজেকে গড়ে তোল। এই ভীষণ প্রতিযোগিতামূলক পৃথিবীতে কারো কথায় হার মেনে নেয়া মানেই নিজের হেরে যাওয়াটা নিশ্চিত করা। এ কথাগুলো নিজের উপর যেন জেদ হিসেবে কাজ করে। নিজেকে যেন তুমি প্রশ্ন করতে পারো যে, “কেন আমি পারব না? আমাকে পারতেই হবে।”

দিনশেষে সবার কাছে সমালোচনা ব্যাপারটা মেনে নেয়া খুব একটা সহজ কাজ নয়। তবে এমন না যে, এটা তোমাকে থামিয়ে দিতে পারবে। এমনটা হলে কারও পক্ষে উপরে ওঠাটা সম্ভব হতো না। যে নিজের উপর বিশ্বাস রেখে এগিয়ে গিয়েছে; সেই সফল হতে পেরেছে। সফলতায় সমালোচনা হার মেনে যায়।

Work hard in silence, let your success speak for itself!


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: [email protected]