জনপ্রিয় ৫টি ফ্যান্টাসি বই: কল্পনার রাজ্যে হারাও!

পুরোটা পড়ার সময় নেই? ব্লগটি একবারে শুনে নাও!

 

ফ্যান্টাসি, খুবই বিস্তৃত একটি জনরা। খুব সম্ভবত পৃথিবীতে বর্তমানে সবচে’ জনপ্রিয় জনরা হল ফ্যান্টাসি। এটি এমন এক জনরা যা পড়লে খুব সহজেই বাস্তব জীবন থেকে পুরো ভিন্ন এক জগতে প্রবেশ করা যায়। যার সাথে এ জগতের কোন মিল নেই। যা কল্পনা ক্ষমতাকে করে তোলে খুব ধারালো। ফ্যান্টাসি মানুষকে ধরে রাখে বর্তমানে, প্লটের গাঁথুনিতে পাঠককে নিয়ে যায় বইয়ের জগতে। তাই তো বিশ্বে এই জনরাটি এতটা জনপ্রিয় এবং পাঠকপ্রিয়। বিশেষত এই জনরার কিছু বই চলে গেছে অন্যরকম উচ্চতায়। আজকে তাই লিখছি, ফ্যান্টাসি জনরার তুমুল জনপ্রিয় পাঁচটি বই নিয়ে।

হ্যারি পটার সিরিজ

জে কে রাওলিং

ফ্যান্টাসি নিয়ে কথা বলতে গেলে স্বভাবতই সবার প্রথমেই চলে আসে হ্যারি পটারের নাম। হ্যারি পটার হচ্ছে এমন এক বুক সিরিজ যা বেস্টসেলারের সংজ্ঞাই পালটে দিয়েছে। আজ পর্যন্ত ৪৫০ মিলিয়নেরও বেশি কপি বিক্রি হয়েছে এই সিরিজ। অনূদিত হয়েছে প্রায় ৬৭ টি ভাষায়।

দারুণ সব লেখা পড়তে ও নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে ঘুরে এসো আমাদের ব্লগের নতুন পেইজ থেকে!

হ্যারি পটার সিরিজে বই রয়েছে সাতটি। প্রত্যেকটির কাহিনীই বেশ চমকপ্রদ আর অ্যাডভেঞ্চার পূর্ণ। একেবারে এড্রেনালিন রাশ দেয়ার মতন কাহিনী শুরু হয় হ্যারি পটার নামক ১১ বছর বয়সী এক ছেলেকে নিয়ে। যে কিনা উইজার্ডিং ওয়ার্ল্ডের সবচেয়ে

ক্ষমতাশালী জাদুকরের ঘাতক স্পেল হজম করেও বেঁচে গেছে। শুধু তাই নয়, উলটো ক্ষমতাবান ডার্ক লর্ডের সব ক্ষমতা বিনাশ হয়ে যায় এই ঘটনার পরে। যার জন্য উইজার্ডিং ওয়ার্ল্ডে সে খুব বিখ্যাত।

হ্যারি ১১ বছর পর্যন্ত থাকে তার আঙ্কেল ও আন্টির সাথে। এগার বছর পর এসে আবিষ্কার করে সে আসলে একজন উইজার্ড বা জাদুকর। জাদুবিদ্যা শেখানোর স্কুল, হগওয়ার্টস স্কুল অফ উইচক্রাফট ও উইজার্ডরির গেইম কিপার হ্যাগ্রিড তার জন্মদিনে তাকে যখন তার ক্ষমতা এবং অতীতের কথা শোনায়, তখন থেকেই শুরু হয় এই জাদুজগতে পাঠকদের যাত্রা। হ্যারির সামনে খুলে যায় নতুন এক অত্যাশ্চর্য জগতের দুয়ার।

হগওয়ার্টস নামক জাদুবিদ্যার এক স্কুলে সে ভর্তি হয়। এখানে পেয়ে যায় দারুণ দু’জন বন্ধু। রন উইজলি এবং হারমিওনি গ্র্যাঞ্জার। শুরু হয় দুর্দান্ত এক অ্যাডভেঞ্চারের। প্রথম পর্ব থেকেই ডার্ক লর্ডের উপস্থিতি অনুভব করা যায়। সে আবার ক্ষমতা ফিরে পেতে মরিয়া। এরপর আবার প্রতিশোধ নেবে হ্যারির উপর। দখল করবে পুরো উইজার্ডিং ওয়ার্ল্ড। এর সাথে স্বাভাবিকতই জড়িয়ে যায় হ্যারি আর তার বন্ধুরা। তারা কি পারবে অতীব ক্ষমতাবান ডার্ক লর্ডের উত্থান থামাতে?

হ্যারি পটার সিরিজের প্রথম বইগুলোতে ইয়াং এডাল্ট ভাইব পাওয়া গেলেও ক্রমেই তা ডার্ক হতে থাকে। এবং প্রতিটা বইয়ের কাহিনীতেই মন ধাঁধিয়ে দেয়া সব টুইস্ট পাওয়া যায়। প্লটের গাঁথুনি এবং শক্তিশালী ক্যারেক্টার, কী নেই? আপনি কিছু ক্যারেক্টারকে ভালোবাসবেন, কাউকে ঘেন্না করবেন আবার এমন সব ক্যারেকটার আছে যাদের আপনি ঘেন্না করবেন নাকি ভালোবাসবেন তা বুঝে উঠতে পারবেন না। এজন্যই তো আজ পর্যন্ত ছেলে থেকে বুড়ো সবার পছন্দের এক সিরিজ এই হ্যারি ভালোবাসবেন তা বুঝে উঠতে পারবেন না। এজন্যই তো আজ পর্যন্ত ছেলে থেকে বুড়ো সবার পছন্দের এক সিরিজ এই হ্যারি পটার। বইগুলো পড়া না থাকলে সময় নিয়ে বসে পড়ুন। দারুণ এক সময় কাটবে।

 
মজায় মজায় ইংরেজি শিখ!
 

কখনো জাদুর ঝাড়ুতে করে উড়বেন, কখনও বা টাইম টার্নার নিয়ে ফেরত যাবেন অতীতে যাই করুন না কেন, থাকবেন হ্যারি পটার নামের গোল চশমা পরিহিত ছেলেটির সাথে সুদীর্ঘ বছর কেননা সিরিজের সাতটি বই সাত বছরের কাহিনী ধারণ করে

দ্য লর্ড অফ দ্য রিংস

জে আর আর টকিয়েন

ডার্ক লর্ড সরন সকল ক্ষমতার রিংগুলো হস্তগত করতে চাইছে। তার পরিকল্পনা এই ক্ষমতার উৎসবিশিষ্ট রিংগুলো দিয়ে মিডল আর্থ দখল করা। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে একটা রিং সে কিছুতেই হাত করতে পারছে না। যেটা আছে বিলবো ব্যাগিনস নামক এক হবিটের কাছে। এই রিংটাই অন্যান্য সকল রিংকে ক্ষমতায়িত করতে পারে।

শায়ারের ছোট নীরব সুন্দর গ্রামটাতে তরুণ ফ্রোডোর উপর কঠিন এক দায়িত্ব চাপল যখন তার বয়স্ক কাজিন বিলবো রিঙের দায়িত্ব তার উপরে চাপিয়ে দিল। ফ্রোডোকে তার গ্রাম ছেড়ে মিডল আর্থ হয়ে ক্র‍্যাকস অফ ডুমের দিকে ভয়ংকর একটা অভিযানে যেতে হবে। যেখানে রিংটাকে ধ্বংস করে দিয়ে সরনের সকল পরিকল্পণা নস্যাৎ করা যাবে।

এই সিরিজটাই পৃথিবীতে ফ্যান্টাসি সাহিত্যের পথ সুগম করেছে। পাঠক তো বটেই, লেখকদের কাছেও সমানভাবে এর আলাদা একটা গুরুত্ব রয়েছে। ফ্যান্টাসি সাহিত্যের ক্লাসিক এই বইটি না পড়লে পাঠক জীবন অসম্পূর্ণ রয়ে যাবে। সিরিজে বই তিনটি। যদিও গল্প মোট একটিই। প্রকাশের সময় ব্যবসায়িক ক্ষতি এড়ানোর জন্য তিন ভাগে ভাগ করা হয় একে।

আ সং অফ আইস এ্যান্ড ফায়ার

জর্জ আর আর মার্টিন

উত্তরের রাজা এডার্ড স্টার্ককে রাজা রবার্ট নিজের উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দেন। কোর্টে তার সম্মানে আঘাত লাগে যখন একজন ব্যক্তি যা সে করতে চায় তাই করে, যা করা উচিত, তা নয়। এদিকে দক্ষিণে ওল্ড গডদের কোন ক্ষমতাই নেই। ইতোমধ্যে স্টার্কের পরিবারের সবাই বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সমুদ্রের ওপারে প্রতিহিংসাপরায়ণ একজন প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে উঠেছে। পাগলাটে ড্রাগন কিংয়ের উত্তরাধিকারী সে যে কিনা রাজা রবার্টের দ্বারা পদচ্যুত হয়েছে। সে এবার ফিরে পেতে চায় তার রাজ্য। কী হবে পরে?

“আ সং অফ আইস অ্যান্ড ফায়ার” তুমুল জনপ্রিয় ফ্যান্টাসিগুলোর মাঝে খুব উল্লেখযোগ্য। জর্জ আর আর মার্টিনকে বলা হয় এমন একজন লেখক যিনি কাজের দিকে টকিয়েনের সমতূল্য। একদম পুরো নতুন এক জগতের সূচনা থেকে এর বিস্তার যেভাবে ঘটিয়েছেন তা সত্যিই বিস্ময়কর। গভীর এক জীবনবোধ পাওয়া যায় তার কল্পকাহিনীগুলোতেও। এখন পর্যন্ত সিরিজের পাঁচটি বই বের হয়েছে। ষষ্ঠ বই প্রকাশিত হবে খুব শীঘ্রই। তবে এটি হবে মূল সিরিজের প্রিক্যুয়েল।

দ্য কিংকিলার ক্রনিকলস

প্যাট্রিক রথফাস

ভোথে, যে কিনা তার জগতের সবচেয়ে মেধাবী জাদুকর হিসেবে গড়ে উঠেছে। ছোটবেলায় পাশবিক এক এতিম জীবন পার করা থেকে শুরু হয় এই গল্পের আখ্যান। তার পুরো শহরটাই অপরাধে পরিপূর্ণ। একসময় সে প্রবেশ করে দুর্দান্ত এক জাদু স্কুলে। কিন্তু এখানেই শেষ নয়। পরবর্তী অংশে দেখা যায় এক রাজার খুনের জন্য সে পলাতক জীবন পার করছে।

তার ছোটবেলা থেকে সফল জাদুকর হয়ে ওঠার অসাধারণ এক আখ্যান এই সিরিজ। সিরিজের দু’টো বই রিলিজ পেয়েছে এ পর্যন্ত। এবং সিরিজটি এখনও চলমান। তবে এরই মাঝে দারুণ সাড়া ফেলে দিয়েছে ফ্যান্টাসিখোরদের মাঝে। নিজস্ব মতামত হচ্ছে হার্ডকোর ফ্যান্টাসি লাভার হয়েই বইটি শুরু করাটা বেটার হবে। তবে দারুণ এক সিরিজ হতে যাচ্ছে এটি তা বলাই বাহুল্য।

দ্য ক্রনিকলস অফ নার্নিয়া

সি এস লুইস

১৯৫০-এর প্রেক্ষাপটে লেখা সিরিজটি। যুদ্ধের ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ সময়ে চারজন ছেলেমেয়েকে তাদের বাবা মা শহরের বাইরে পাঠিয়ে দিলেন। বৃদ্ধ আর রহস্যময় এক প্রফেসরের সাথে থাকবার সময় একদিন একটা ঘটনা ঘটল। সবচেয়ে ছোট মেয়ে লুসি একটা ওয়্যারড্রোবের মাঝে পড়ে গেল। এবং আবিষ্কার করল সে এসে পড়েছে জাদুকরী এক জগতে। যেখানে ক্ষমতায় আছে স্বৈরাচারী রাণী হোয়াইট উইচ। এখানে লুসি আর তার ভাইবোনরা অনেক বন্ধু বানিয়ে ফেলে। মজার ব্যাপার হচ্ছে তাদের বেশিরভাগই ফ্যান্টাসিক্যাল ক্রিয়েচার। এদের নিয়েই জাদুকরী সিংহ আসলানের উপদেশ নিয়ে তাদের যাত্রা শুরু হয় হোয়াইট উইচের বিরুদ্ধে। শান্তি পুনর্বহাল করতে হবে নার্নিয়ায়।

আরেকটা খুব দারুণ আর চমকপ্রদ সিরিজ। মোট সাতটি বই রয়েছে সিরিজটিতে। চরিত্রগুলো যেমন দারুণ তেমনি খুব মায়াময়ও বটে। এক টানে পড়ে ফেলার মত সুন্দর একটি সিরিজ হচ্ছে ক্রনিকলস অফ নার্নিয়া।

এইসব ফ্যান্টাসি বই ছাড়াও আছে অনেক বই যেমন রিক রাইঅর্ডেনের পার্সি জ্যাকসন বা হিরোস অফ অলিম্পাস সিরিজ, ব্র‍্যান্ডন স্যান্ডারসনের মিস্টবর্ন সিরিজ, ওদিকে আছে জিম বুচারের ড্রেসডেন ফাইলস, রবার্ট জর্ডানের হুইল অফ টাইম সিরিজ, কিংবা বাংলাদেশী লেখক তানজীম রহমানের আর্কন, অক্টারিন বা আশরাফুল সুমনের লেখা ফ্যান্টাসি কুয়াশিয়া, অথবা বাংলাদেশের প্রথম ফ্যান্টাসি সংকলন কল্পলোক ফ্যান্টাসি নিয়ে আছে প্রচুর বই কিন্তু তার আগে পড়ে ফেলা উচিত এই সাড়া জাগানো পাঁচটি বই!

এই লেখাটির অডিওবুকটি পড়েছে মেহের আফরোজ শাওলী


১০ মিনিট স্কুলের লাইভ এডমিশন কোচিং ক্লাসগুলো অনুসরণ করতে সরাসরি চলে যেতে পারো এই লিঙ্কে: www.10minuteschool.com/admissions/live/

১০ মিনিট স্কুলের ব্লগের জন্য কোনো লেখা পাঠাতে চাইলে, সরাসরি তোমার লেখাটি ই-মেইল কর এই ঠিকানায়: [email protected]

লেখাটি ভালো লেগে থাকলে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না!
Author
Meher Afroze Shawly
এই লেখকের অন্যান্য লেখাগুলো পড়তে এখানে ক্লিক করুন
What are you thinking?